পেয়াজের দাম যেন কমছেই না, আকাশ ছোয়া পেয়াজের দামে অতিষ্ট ক্রেতারা। এর মাঝে বানিজ্য মন্ত্রী টিপু মুনশি বললেন, পেয়াজের দাম কবে কমবে তা সুনির্দিষ্ট করে বলা যাচ্ছে না। তবে পরামর্শ দিয়েছেন পেয়াজের ব্যবহার কমিয়ে আনতে, তিনি আরো বলেন দেশি পেয়াজ উৎপাদনে জোর দিলে এ সমস্যার দ্রুত সমাধান সম্ভব। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্নের জবাবে ওই কমিটির সভাপতি তোফায়েল আহমেদ বলেন, পণ্যের দাম বাড়লেও দোষ, কমলেও দোষ। বাড়লে লেখালেখি হয়। আর কমলে লেখা হয় কৃষক দাম পাচ্ছেন না। বানিজ্য মন্ত্রী টিপু মুনশি আরো বলেন, মিশর, উজবেকিস্তান থেকে পেঁয়াজ আমদানী করা হলে খরচ পড়বে ৪০–৪৫ টাকা। তবে এর জন্য দরকার সময়। কারণ নতুন বাজারে যাওয়া, আর মিশরে পেঁয়াজের দাম নগদে দিতে হয়। সমস্যা সমাধানের একটাই পথ, দেশি উৎপাদন বাড়ানো। উৎপাদন বাড়াতে হলে কৃষকেরা যাতে ন্যায্য দাম পায় তা দেখতে হবে। দেশি পেঁয়াজ ওঠলে এবং দাম পেতে শুরু করলে আমদানি কমিয়ে দেওয়া হবে। তিনি বলেন, ডিসেম্বরের শেষে বা মাঝামাঝি সময়ে দেশি পেঁয়াজ বাজারে আসবে। মিশর থেকেও যদি পুরোদমে চালান ঠিক থাকে এবং তাদের দাম না বাড়ে তাহলে দাম কমবে বলে তিনি মনে করেন।