খেলাধুলাঃ

একে তো দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে খেলা আবার প্রতিপক্ষ ঐ দক্ষিণ আফ্রিকায়। তাতে কি স্বাগতিকদের ১০৫ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে শেষ চার নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ।

জিতলে সেমিফাইনাল এমন সমীকরণে টস হেরে ব্যাটিং বাংলাদেশ অ-১৯।তানজিদ হাসান তামিম ৮০, শাহাদাত হোসেন ৭৪ ও তৌহিদ হৃদয়ের ৫১ রানে ভর করে ২৬১ রান তুলে বাংলাদেশ।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে স্বাগতিক ওপেনার খানইয়া কোটানিকে ১৫ রানে ফিরিয়ে দেন পেসান তানজিম হাসান সাকিব। ৩৫ রান করা জনাথান বার্ড ও ৭ রান করা ব্রাইস পারসনসকে বিদায় করেন স্পিনার রাকিবুল হাসান।
৪ রান করা মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান থিরেসে কারেলসেকে বোল্ড করেন সাকিব।
মাঝে জ্যাক লিস ও লুক বিউফোর্টের ৫৬ রানের জুটি কিছুটা বিপাকে ফেলে বাংলাদেশকে। যদিও ১৯ রান করা লিসকে আউট করে দলকে ম্যাচে ফেরান শরিফুল ইসলাম।

৩৪তম ওভারে ১ রান করা ফেকো মলেস্টানে ও ৩৯তম ওভারের ১৯ রান করা টিয়ান ফন ভুরেনকে বিদায় করেন রাকিবুল।
পরের ওভারে ২ রান করা জেরাল্ড কয়েটজেকে বিদায় করের শামিম হোসেন।

৪১তম ওভারের প্রথম বলে ৬০ রান করা বিউফোর্ট ও তৃতীয় বলে শূন্যরান করা মন্দিল খুমালুকে বিদায় করেন রাকিবুল। নিজের পাঁচ উইকেটের পাশাপাশি দলকেও জিতেই দেন বাম-হাতি এই স্পিনার। ৯.৩ ওভার হাত ঘুরিয়ে মাত্র ১৯ রানে ৫ উইকেট দিয়ে ম্যাচ সেরা হন রাকিবুল।

২০১৬ সালের পর ২য় বারে মত সেমিফাইনালে ওঠেছে বাংলাদেশের যুবারা।

সংক্ষিপ্ত_স্কোর

বাংলাদেশ ২৬১/৫ (৫০ ওভার)
তামিম ৮০, শাহাদাত ৭৪, হৃদয় ৫১
মলেটসেন ৪১/২, ভ্যান ভুরেন ৪৬/১

দক্ষিণ আফ্রিকা ১৫৭ (৪২.৩ ওভার)
বিউফোর্ট ৬০, বার্ড ৩৫, লিস ১৯
রকিবুল /৫, সাকিব ৪১/২, শরিফুল ২৮/১, শামিম ৩৬/১
ফলাফল :বাংলাদেশ ১০৫ রানে জয়ী।